নির্যাতিতরা জাগবেই

রউফুল আলম,

 

মোঙ্গলরা অর্ধেক দুনিয়া ম্যাসাকার করেছে। চেঙ্গিস খাঁ, সে সময়ের বেইজিং আক্রমণ করেছিলো। আটশত বছর পূর্বের বেইজিং শহর, এখনকার মতোই ছিলো এক শ্রেষ্ঠ বাণিজ্যিক নগরী। এই মোঙ্গলরা পারস্যকে ধূলিতে মিশিয়েছে। পারস্যের সহস্র বছরের সভ্যতাকে ধ্বংস করেছে। অসংখ্য মানুষ মেরেছে। সেই মোঙ্গলদের খবর কেউ রাখে না আজ। তারা শক্তিহীন এক দুর্বলতম জাতি! চীনের কাছে আজ চুনোপুঁটি।

গ্রীক নেতা আলেকজান্ডার ইউরোপ থেকে পারস্য হয়ে ভারত পর্যন্ত পৌঁছেছিলেন। জ্ঞান-দর্শনে সে সময়ে গ্রীকদের উপর কেউ ছিলো না। যুদ্ধে তাদের হটায় এমন সেনাদল কারো ছিলো না। সেই গ্রীস, ইউরোপের দরিদ্রতম দেশ আজ।

বৃটিশরা আমাদের শোষণ করেছিলো দুইশত বছর। বৃটিশরা হটেছে। বলা হতো, বৃটিশ সাম্রাজ্যে সূর্য অস্ত যায় না। কিন্তু গিয়েছে। বৃটিশদের ঔপনিবেশিক রাষ্ট্রগুলো এখন জাগছে।

হারিয়ে গেছে রোমানরা। হিটলার কী ধ্বংস হয়নি? ইয়াহিয়া খান কী হারেনি? এই আমেরিকা ছেড়েছে ফরাসীরা। বৃটিশরা। স্পেনিশরা।

এমন কতো সাম্রাজ্য অতীত। কতো রাজা এলো গেলো। কতো রাজ্যের গৌরব ধূলায় মিশলো। ট্রাম্প কী কুবলা খাঁ’র চেয়েও শক্তিশালী? ট্রাম্প কী আলেকজান্ডারের চেয়ে ভয়ঙ্কর? ট্রাম্প কী হেক্টরের চেয়েও বড়ো যোদ্ধা?

সকালের কফিতে চুমুক দিতে দিতে খবরে ট্রাম্পের কথা শুনি। আর ভাবি, ইতিহাস থেকে কেউ শিক্ষা নেয় না। না হলে জানতো, পৃথিবীতে নির্যাতিতরা জেগে উঠে। ঐক্যবদ্ধ হতে শিখে। বিজয়ী হয়। নির্যাতনকারীরা হেরে যায়, সুনিশ্চিত। আজ নয় কাল!

 

রউফুল আলম

ক্যালিফোর্নিয়া, আমেরিকা

ফেচবুক থেকে

Comments

comments