বলতে লজ্জা নেই দিনমজুর থেকে বিসিএস ক্যাডার হয়েছি

স্টাফ রিপোর্টার- খন্দকার সোহেল আরমান

অভাবের সংসারে লেখাপড়া করাই যেখানে বিলাসীতা ছিল। তারপরও দারিদ্রকে জয় করেছেন তিনি। নিজ মেধার জোরে এখন বিসিএস ক্যাডার। একটি সরকারি কলেজের প্রভাষক। মনিরুল ইসলামরা সাত ভাইবোন। বাবা-মা হিমশিম খান খাবার জোটাতে। এর-ওর বাড়িতে দিনমজুরের কাজ করেন মনির। বছরখানেক কাঠমিস্ত্রির সহকারীও ছিলেন। সাতক্ষীরার নলতার কাঠগোলায় আসবাবের এক দোকানেও কাজ করেছেন। কিন্তু জীর্ণ শরীরে কাজ করতে কষ্ট হয়। ওস্তাদ যা তা বলে। এর মধ্যেই পাশাপাশি লেখাপড়া। এসএসসি পাস করে ঢাকায় একটা ওষুধ কোম্পানিতে শ্রমিকের কাজ নেন।
মনিরুল বললেন, ‘নলতা মাজারের এক খাদেম আমাকে পড়ালেখা করতে সহায়তা করেন। তখন ঢাকা থেকে আবার সাতক্ষীরায় চলে আসি। উচ্চমাধ্যমিক পাস করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হই।’ সেখান থেকে ৩৫তম বিসিএস ক্যাডার মনিরুল। মনিরুল বলেন, ‘দিনমজুর থেকে আমি বিসিএস ক্যাডার হয়েছি। বলতে কোনো লজ্জা নেই। দিনমজুর, কাঠমিস্ত্রি অথবা বর্গাচাষি কোনো পরিচয় নিয়ে আমার আক্ষেপ নেই। শপথ করে বলছি, সমাজের কাছে হেরে যেতে চাই, এই সমাজটিকেই জেতাব বলে।’ কথা বলতে বলতে মনিরুলের চোখ ভিজে যায় আনন্দে।

Comments

comments